প্রকাশিত কালাম 16

1পরে আমি শুনলাম, সেই উপাসনা-ঘর থেকে সেই সাতজন স্বর্গদূতকে একজন জোরে জোরে বলছেন, “তোমরা গিয়ে ঈশ্বরের ক্রোধে ভরা সাতটা বাটি পৃথিবীর উপর উবুড় করে ঢেলে দাও।” 2তখন প্রথম স্বর্গদূত গিয়ে তাঁর বাটিটা পৃথিবীর উপর উবুড় করলেন। তার ফলে যাদের উপর সেই জন্তুটার চিহ্ন ছিল এবং যারা তার মূর্তির পূজা করত তাদের গায়ে খুব খারাপ ও বিষাক্ত এক রকমের ঘা দেখা দিল। 3দ্বিতীয় স্বর্গদূত তাঁর বাটিটা সমুদ্রের উপরে উবুড় করলেন। তখন সমুদ্রের জল মরা মানুষের রক্তের মত হল, আর সমুদ্রের সব প্রাণী মরে গেল। 4পরে তৃতীয় স্বর্গদূত নদী আর ফোয়ারার উপরে তাঁর বাটিটা উবুড় করলেন। তাতে সেগুলো রক্তের নদী ও ফোয়ারা হয়ে গেল। 5জলের উপরে যে স্বর্গদূতের ক্ষমতা ছিল আমি তাঁকে এই কথা বলতে শুনলাম: “হে পবিত্র, তুমি আছ এবং তুমি ছিলে। তুমি ন্যায়বান, কারণ তুমি এই সব শাস্তি দিয়েছ। 6এই লোকেরা ঈশ্বরের লোকদের ও নবীদের খুন করেছে। তাই তুমি তাদের এই রক্ত খেতে দিয়েছ আর এটাই তাদের পক্ষে উপযুক্ত হয়েছে।” 7আমি বেদী থেকে একজনকে এই কথা বলতে শুনলাম: “সর্বশক্তিমান প্রভু ঈশ্বর, তোমার সব বিচার সত্য ও ন্যায়ে পূর্ণ।” 8চতুর্থ স্বর্গদূত সূর্যের উপরে তাঁর বাটিটা উবুড় করলেন। তাতে লোকদের আগুন দিয়ে পুড়িয়ে দেবার জন্য সূর্যকে ক্ষমতা দেওয়া হল। 9তখন ভীষণ তাপে লোকদের গা পুড়ে গেল, আর এই সমস্ত আঘাতের উপর যাঁর ক্ষমতা আছে তারা সেই ঈশ্বরের নিন্দা করতে লাগল। কিন্তু তবুও তারা মন ফিরাল না এবং ঈশ্বরের গৌরব করল না। 10পরে পঞ্চম স্বর্গদূত সেই জন্তুর সিংহাসনের উপর তাঁর বাটিটা উবুড় করলেন। তাতে সেই জন্তুটার রাজ্য অন্ধকার হয়ে গেল। যন্ত্রণায় লোকে তাদের জিভ্‌ কামড়াতে লাগল এবং তাদের এই যন্ত্রণা আর ঘায়ের জন্য তারা স্বর্গের ঈশ্বরের নিন্দা করতে লাগল, কিন্তু তবুও তারা তাদের মন্দ কাজ থেকে মন ফিরাল না। 12তারপর ষষ্ঠ স্বর্গদূত মহানদী ইউফ্রেটিসের উপরে তাঁর বাটিটা উবুড় করলেন। তাতে পূর্ব দেশের রাজাদের যাবার পথ তৈরী হবার জন্য সেই নদীর জল শুকিয়ে গেল। 13তখন আমি ব্যাঙের মত তিনটা মন্দ আত্মা দেখতে পেলাম। সেগুলো সেই দানব, সেই জন্তু এবং সেই ভণ্ড নবীর মুখ থেকে বের হয়ে আসছিল। 14সেই মন্দ আত্মাগুলো আশ্চর্য আশ্চর্য কাজ করছিল। সর্বশক্তিমান ঈশ্বরের সেই মহান দিনে যুদ্ধ করবার জন্য তারা সারা জগতের রাজাদের একসংগে জড়ো করল। 15যীশু বলছেন, “দেখ, আমি চোরের মত আসব। ধন্য সেই লোক, যে জেগে থাকে এবং নিজের পোশাক পরে থাকে, যেন তাকে উলংগ হয়ে ঘুরতে না হয় আর লোকে তার লজ্জা দেখতে না পায়।” 16ইব্রীয় ভাষায় যে জায়গার নাম হরমাগিদোন, মন্দ আত্মারা সেই রাজাদের সেখানে জড়ো করল। 17পরে সপ্তম দূত তাঁর বাটিটা বাতাসে উবুড় করলেন। তখন উপাসনা-ঘরের সিংহাসন থেকে জোরে এই কথাগুলো বলা হল, “যা হবার তা হয়ে গেছে।” 18তখন বিদ্যুৎ চম্‌কাতে লাগল, ভয়ংকর শব্দ হতে ও বাজ পড়তে লাগল এবং এমন ভীষণ ভূমিকম্প হল যা পৃথিবীতে মানুষ সৃষ্টির পর থেকে আর কখনও দেখা যায় নি। সেই ভূমিকম্প খুবই সাংঘাতিক ছিল। 19সেই নাম-করা শহরটা তিন ভাগে ভাগ হয়ে গেল এবং বিভিন্ন জাতির শহরগুলো ভেংগে পড়ে গেল। পরে সেই নাম-করা বাবিলের কথা ঈশ্বরের মনে পড়ল, আর তিনি তাঁর ক্রোধের ভয়ংকর মদে পেয়ালা পূর্ণ করে বাবিলকে খেতে দিলেন। 20তখন প্রত্যেকটা দ্বীপ পালিয়ে গেল এবং পাহাড়গুলো আর দেখা গেল না। 21আকাশ থেকে মানুষের উপর বড় বড় পাথরের মত শিল পড়তে লাগল। তার প্রত্যেকটার ওজন ছিল ছত্রিশ কেজি। এতে লোকে শিলের আঘাতের জন্য ঈশ্বরের নিন্দা করতে লাগল, কারণ সেই শিলের আঘাত ছিল ভয়ংকর।


Copyrighted Material
Learn More

will be added

X\