Proverbs 20

1যে লোক আংগুর-রস খেয়ে মাতাল হয় সে ঠাট্টা-বিদ্রূপ করে, আর যে মদ খায় সে তুমুল ঝগড়া-বিবাদ করে; এগুলো খেয়ে যে মাতাল হয় সে জ্ঞানী নয়। 2রাজার রাগ সিংহের গর্জনের মত; তাঁকে যে রাগায় সে নিজের প্রাণকে বিপদে ফেলে। 3ঝগড়া-বিবাদ এড়িয়ে যাওয়ার ফলে মানুষ সম্মান পায়; যাদের বিবেক অসাড় তারা প্রত্যেকেই ঝগড়া করতে প্রস্তুত থাকে। 4অলস শীতকালে চাষ করে না, সেইজন্য ফসল কাটবার সময় সে চাইলেও কিছু পাবে না। 5মানুষের অন্তরের উদ্দেশ্য যেন মাটির নীচে থাকা জল, কিন্তু বুদ্ধিমান লোক তা তুলে আনে। 6অনেক লোক নিজেদের বিশ্বস্ত বলে দাবি করে, কিন্তু বিশ্বাসযোগ্য লোক কে খুঁজে পায়? 7ঈশ্বরভক্ত লোক সততায় চলাফেরা করেন; ধন্য তাঁর বংশধরেরা! 8রাজা যখন বিচার করতে সিংহাসনে বসেন তখন চোখের চাহনি দিয়ে তিনি সমস্ত দুষ্টতাকে দূর করে দেন। 9কে বলতে পারে, “আমার অন্তর আমি খাঁটি করেছি, আমার পাপ থেকে আমি পরিষ্কার হয়েছি”? 10বেঠিক বাটখারা ও মাপ- এ দু’টাই সদাপ্রভু ঘৃণা করেন। 11কিশোর-কিশোরীদের কাজকর্ম খাঁটি ও ঠিক হোক বা না হোক, সেই কাজের দ্বারাই তারা নিজেদের পরিচয় দেয়। 12শুনবার জন্য কান ও দেখবার জন্য চোখ- সদাপ্রভু এ দু’টাই সৃষ্টি করেছেন। 13ঘুম ভালবেসো না, তাতে তুমি গরীব হবে; জেগে থাক, তাতে তোমার যথেষ্ট খাবার থাকবে। 14খদ্দের বলে, “ওটা ভাল নয়, ভাল নয়।” তারপর সে কিনে নিয়ে চলে যায় আর তার কেনা জিনিস নিয়ে গর্ব করে। 15সোনা আছে, প্রবাল পাথরও প্রচুর আছে, কিন্তু যে মুখ জ্ঞানের কথা বলে তার মূল্য অনেক বেশী। 16যে লোক বিদেশী লোকের জামিন হয় তার পোশাক নিয়ে যাও; যে লোক অন্য কোন দেশের লোকের জামিন হয় তাকেই জামানতের জিনিস হিসাবে রেখো। 17ঠকিয়ে পাওয়া খাবার মানুষের কাছে মিষ্টি লাগে, কিন্তু শেষে তার মুখ কাঁকরে ভরে যায়। 18পরামর্শ নিয়ে পরিকল্পনা কোরো; উপযুক্ত পরামর্শ না নিয়ে তুমি যুদ্ধ ঘোষণা কোরো না। 19যে নিন্দা করে বেড়ায় সে গুপ্ত কথা প্রকাশ করে দেয়; কাজেই যে বেশী কথা বলে তার সংগে মেলামেশা কোরো না। 20যার কথায় বাবা কিম্বা মায়ের প্রতি অশ্রদ্ধা থাকে, ভীষণ অন্ধকারে তার জীবন-বাতি নিভে যাবে। 21বাবার সম্পত্তির অধিকার যদি তাড়াতাড়ি পাওয়া যায় তবে শেষে তাতে আশীর্বাদ পাওয়া যাবে না। 22তুমি বোলো না, “এই অন্যায়ের প্রতিশোধ নেব।” সদাপ্রভুর জন্য অপেক্ষা কর, তিনি সেই বিপদ থেকে তোমাকে রক্ষা করবেন। 23সদাপ্রভু বেঠিক বাটখারা ঘৃণা করেন; ঠকামির দাঁড়িপাল্লা ভাল নয়। 24বীরপুরুষের চলবার পথ যদি সদাপ্রভুই ঠিক করে দেন, তাহলে সাধারণ মানুষ তার নিজের পথ কেমন করে বুঝতে পারবে? 25ভেবে না দেখে তাড়াতাড়ি করে সদাপ্রভুর উদ্দেশে কোন কিছু মানত করা মানুষের জন্য ফাঁদ হয়ে দাঁড়ায়। 26চাপ দিয়ে যেমন শস্য মাড়াই করা হয়, তেমনি জ্ঞানী রাজা তাঁর ক্ষমতা ব্যবহার করে দুষ্টদের দূর করে দেন। 27মানুষের আত্মা হল সদাপ্রভুর বাতি; তা মানুষের অন্তরের গভীর জায়গাগুলো খুঁজে দেখে। 28বিশ্বস্ততা আর সততা রাজাকে নিরাপদে রাখে; বিশ্বস্ততার মধ্য দিয়ে তাঁর সিংহাসন স্থির থাকে। 29যুবকদের শক্তিই হল তাদের সৌন্দর্য, আর বুড়োদের গৌরব হল পাকা চুল। 30ভীষণভাবে মার খেলে মন্দতা পরিষ্কার হয়ে যায়, আর মনে আঘাত পেলে অন্তরের গভীর জায়গাগুলো পরিষ্কার হয়ে যায়।

will be added

X\