Joshua 10

1যিরূশালেমের রাজা অদোনী-ষেদক শুনতে পেলেন যে, যিহোশূয় অয় শহরটা অধিকার করে নিয়ে তা একেবারে ধ্বংস করে দিয়েছেন এবং তিনি যিরীহো ও তার রাজার দশা যা করেছিলেন অয় ও তার রাজার দশাও তা-ই করেছেন। তিনি আরও শুনলেন যে, গিবিয়োনীয়েরা ইস্রায়েলীয়দের সংগে সন্ধি করেছে এবং তারা তাদের সংগে আছে। 2এতে তিনি ও তাঁর লোকেরা খুব ভয় পেলেন, কারণ গিবিয়োন ছিল রাজধানীর মতই একটা বড় শহর। এটা ছিল অয় শহরের চেয়েও বড় এবং তার সব পুরুষ লোকেরাই ছিল শক্তিশালী। 3সেইজন্য হিব্রোণের রাজা হোহম, যর্মূতের রাজা পিরাম, লাখীশের রাজা যাফিয় এবং ইগ্লোনের রাজা দবীরের কাছে যিরূশালেমের রাজা অদোনী-ষেদক এই অনুরোধ করে পাঠালেন, 4“আপনারা এসে আমাকে গিবিয়োন শহরটা আক্রমণ করতে সাহায্য করুন, কারণ তারা যিহোশূয় এবং ইস্রায়েলীয়দের সংগে সন্ধি করেছে।” 5এই কথা শুনে সেই পাঁচজন ইমোরীয় রাজা, অর্থাৎ যিরূশালেম, হিব্রোণ, যর্মূত, লাখীশ ও ইগ্লোনের রাজা তাঁদের সৈন্যদল এক জায়গায় জড়ো করলেন। তারপর তাঁদের সৈন্যদল নিয়ে তাঁরা এগিয়ে গিয়ে গিবিয়োনের কাছাকাছি ছাউনি ফেললেন এবং শহরটা আক্রমণ করলেন। 6তখন গিবিয়োনীয়েরা গিল্‌গলের ছাউনিতে যিহোশূয়ের কাছে এই খবর পাঠাল, “আপনার দাসদের ত্যাগ করবেন না। আপনারা তাড়াতাড়ি এসে আমাদের রক্ষা করুন, আমাদের সাহায্য করুন, কারণ পাহাড়ী এলাকা থেকে ইমোরীয় রাজারা এসে আমাদের বিরুদ্ধে তাদের সৈন্যদল একসংগে জড়ো করেছে।” 7এই খবর পেয়ে যিহোশূয় তাঁর গোটা সৈন্যদল নিয়ে গিল্‌গল থেকে এগিয়ে গেলেন। তার মধ্যে ছিল ইস্রায়েলীয়দের সমস্ত বীর যোদ্ধারা। 8সদাপ্রভু যিহোশূয়কে বললেন, “তুমি তাদের ভয় কোরো না; আমি তাদের তোমার হাতে তুলে দিয়েছি। তারা কেউ তোমার সামনে দাঁড়াতে পারবে না।” 9গিল্‌গল থেকে বেরিয়ে সারা রাত হাঁটবার পর যিহোশূয় হঠাৎ তাদের আক্রমণ করলেন। 10সদাপ্রভু ইস্রায়েলীয়দের সামনে তাদের একটা বিশৃঙ্খল অবস্থায় ফেলে দিলেন। তাতে সদাপ্রভু গিবিয়োনে ইস্রায়েলীয়দের দিয়ে তাদের অনেককে মেরে ফেললেন। বৈৎ-হোরোণে উঠে যাবার রাস্তা ধরে সদাপ্রভু ইস্রায়েলীয়দের দিয়ে তাদের তাড়া করালেন এবং অসেকা ও মক্কেদা পর্যন্ত সারা রাস্তা তাদের মারতে মারতে নিয়ে গেলেন। 11ইস্রায়েলীয়দের সামনে থেকে তারা যখন বৈৎ-হোরোণ ছেড়ে অসেকায় নেমে আসবার পথ ধরে পালিয়ে যাচ্ছিল তখন সদাপ্রভু আকাশ থেকে বড় বড় শিলা তাদের উপরে ফেললেন। ফলে ইস্রায়েলীয়দের সংগে যুদ্ধে যত না লোক মরল তার চেয়ে বেশী মরল এই শিলাতে। 12যেদিন সদাপ্রভু ইস্রায়েলীয়দের হাতে ইমোরীয়দের তুলে দিলেন সেই দিন ইস্রায়েলীয়দের সামনেই যিহোশূয় সদাপ্রভুকে বললেন, “হে সূর্য, গিবিয়োনের উপর তুমি স্থির হয়ে দাঁড়াও, হে চাঁদ, অয়ালোন উপত্যকায় তুমি গিয়ে দাঁড়াও।” 13তাই সূর্য স্থির হয়ে দাঁড়াল আর চাঁদের গতি থেমে গেল, যে পর্যন্ত না ইস্রায়েল তার শত্রুদলের উপর শোধ নিল।” এই কথা যাশেরের বইতে লেখা আছে। তখন সূর্য আকাশের মাঝখানে গিয়ে থেমে রইল এবং অস্ত যেতে প্রায় পুরো একটা দিন দেরি করল। 14এর আগে বা পরে এমন দিন আর কখনও আসে নি যখন সদাপ্রভু এমনিভাবে মানুষের কথা রেখেছেন। সেই দিন সদাপ্রভু ইস্রায়েলীয়দের হয়ে যুদ্ধ করছিলেন। 15এর পর যিহোশূয় সমস্ত ইস্রায়েলীয়দের নিয়ে গিল্‌গলের ছাউনিতে ফিরে গেলেন। 16সেই পাঁচজন ইমোরীয় রাজা পালিয়ে গিয়ে মক্কেদা শহরের কাছে একটা গুহাতে লুকিয়েছিলেন। 17সেই গুহাতে লুকানো অবস্থায় সেই পাঁচজন রাজাকে খুঁজে পাবার খবর যখন যিহোশূয়কে জানানো হল তখন তিনি বললেন, “গুহাটার মুখে বড় বড় পাথর গড়িয়ে দাও এবং সেটা পাহারা দেবার জন্য কয়েকজন লোক দাঁড় করিয়ে রাখ। 19কিন্তু তোমরা থেমো না; তোমাদের শত্রুদের তাড়া করে নিয়ে যাও, পিছন দিক থেকে তাদের আক্রমণ কর এবং তাদের নিজেদের শহরে ফিরে যেতে দিয়ো না। তোমাদের ঈশ্বর সদাপ্রভু তোমাদের হাতে তাদের তুলে দিয়েছেন।” 20এইভাবে যিহোশূয় ও ইস্রায়েলীয়েরা ইমোরীয়দের ধ্বংস করে ফেলল। এতে প্রায় সবাই মারা পড়ল; কিন্তু যে কয়েকজন বাকী ছিল তারা তাদের দেয়াল-ঘেরা শহরে গিয়ে ঢুকল। 21এর পর ইস্রায়েলীয়দের সৈন্যেরা সবাই মক্কেদার ছাউনিতে নিরাপদে যিহোশূয়ের কাছে ফিরে গেল। ইস্রায়েলীয়দের বিরুদ্ধে কেউ কোন কথা বলবার সাহস পেল না। 22তারপর যিহোশূয় বললেন, “গুহার মুখ খুলে ঐ পাঁচজন রাজাকে বের করে আমার কাছে নিয়ে এস।” 23তাতে সেই গুহা থেকে সেই পাঁচজন রাজাকে তারা বের করে নিয়ে আসল। এঁরা ছিলেন যিরূশালেম, হিব্রোণ, যর্মূত, লাখীশ ও ইগ্লোনের রাজা। 24তারা যখন সেই রাজাদের যিহোশূয়ের কাছে নিয়ে আসল তখন তিনি সমস্ত ইস্রায়েলীয়দের ডাকলেন এবং তাঁর সংগে যে সেনাপতিরা যুদ্ধে গিয়েছিল তাদের বললেন, “তোমরা এখানে এসে ঐ রাজাদের ঘাড়ে তোমাদের পা রাখ।” এতে তারা এগিয়ে গিয়ে ঐ রাজাদের ঘাড়ের উপর তাদের পা রাখল। 25যিহোশূয় তাদের বললেন, “তোমরা ভয় কোরো না, হতাশ হোয়ো না। তোমরা শক্তিশালী হও ও মনে সাহস আন। তোমরা যে সব শত্রুদের সংগে যুদ্ধ করতে যাবে তাদের সকলের অবস্থা সদাপ্রভু এই রকম করবেন।” 26তারপর যিহোশূয় সেই রাজাদের মেরে ফেলে পাঁচটা গাছে তাঁদের টাংগিয়ে দিলেন। বিকাল পর্যন্ত তাঁদের দেহ গাছে টাংগানোই রইল। 27সূর্য ডুবে যাওয়ার সময় যিহোশূয়ের আদেশে লোকেরা গাছ থেকে তাঁদের দেহগুলো নামিয়ে ফেলল এবং যে গুহাতে তাঁরা লুকিয়ে ছিলেন তার মধ্যে সেই দেহগুলো ছুঁড়ে ফেলল। গুহার মুখটা তারা বড় বড় পাথর দিয়ে ঢেকে দিল। সেগুলো আজও সেখানে রয়েছে। 28যিহোশূয় সেই দিনই মক্কেদা অধিকার করে নিলেন। তিনি সেই শহরের রাজা ও সমস্ত লোকদের মেরে ফেললেন এবং সেখানকার সব জীবন্ত প্রাণীদের শেষ করে দিলেন, কাউকেই বাঁচিয়ে রাখলেন না। তিনি যিরীহোর রাজার যে অবস্থা করেছিলেন মক্কেদার রাজার অবস্থাও তা-ই করলেন। 29পরে যিহোশূয় ইস্রায়েলীয়দের সকলকে নিয়ে মক্কেদা থেকে লিব্‌নার দিকে এগিয়ে গিয়ে তা আক্রমণ করলেন। 30সদাপ্রভু সেই শহর ও সেখানকার রাজাকে ইস্রায়েলীয়দের হাতে তুলে দিলেন। যিহোশূয় সেই শহরের লোকদের ও সব জীবন্ত প্রাণীদের মেরে ফেললেন, কাউকেই বাঁচিয়ে রাখলেন না। তিনি যিরীহোর রাজার যে অবস্থা করেছিলেন সেখানকার রাজার অবস্থাও তা-ই করলেন। 31এর পর যিহোশূয় ইস্রায়েলীয়দের সবাইকে নিয়ে লিব্‌না থেকে লাখীশের দিকে এগিয়ে গেলেন। তিনি লাখীশ ঘেরাও করে তা আক্রমণ করলেন। 32সদাপ্রভু লাখীশ ইস্রায়েলীয়দের হাতে তুলে দিলেন। দ্বিতীয় দিনে যিহোশূয় সেটা অধিকার করে নিলেন। যিহোশূয় লিব্‌না শহরে যেমন করেছিলেন সেইভাবে লাখীশের লোকদের ও সব জীবন্ত প্রাণীদের মেরে ফেললেন। 33এর মধ্যে গেষরের রাজা হোরম লাখীশের লোকদের সাহায্য করতে এসেছিলেন কিন্তু যিহোশূয় তাঁকে ও তাঁর সৈন্যদলকে হারিয়ে দিলেন। শেষ পর্যন্ত আর কেউই বেঁচে রইল না। 34তারপর যিহোশূয় ইস্রায়েলীয়দের সবাইকে নিয়ে লাখীশ থেকে ইগ্লোনের দিকে এগিয়ে গেলেন। তারা ইগ্লোন ঘেরাও করে তা আক্রমণ করল। 35সেই দিনই তারা ইগ্লোন অধিকার করে নিল এবং সেখানকার লোকদের মেরে ফেলল। লাখীশে যিহোশূয় যেমন করেছিলেন সেইভাবেই তিনি ইগ্লোনের সব জীবন্ত প্রাণীদের একেবারে শেষ করে দিলেন। 36এর পর যিহোশূয় ইস্রায়েলীয়দের সবাইকে নিয়ে ইগ্লোন থেকে হিব্রোণে গিয়ে শহরটা আক্রমণ করলেন। 37তারা শহরটা অধিকার করে নিয়ে সেখানকার লোকদের, তাদের রাজাকে, তার আশেপাশের গ্রামগুলোর সমস্ত লোকদের ও হিব্রোণের সব জীবন্ত প্রাণীদের মেরে ফেলল। যিহোশূয় ইগ্লোনে যেমন করেছিলেন তেমনি সেখানে কাউকেই বাঁচিয়ে রাখলেন না; তিনি হিব্রোণ ও তার সমস্ত লোকদের একেবারে শেষ করে দিলেন। 38পরে যিহোশূয় ইস্রায়েলীয়দের সবাইকে নিয়ে ঘুরে গিয়ে দবীর শহর আক্রমণ করলেন। 39তারা সেই শহর, তার রাজা এবং তার গ্রামগুলো অধিকার করে নিয়ে সেখানকার সবাইকে মেরে ফেলল। তারা সেখানকার সব জীবন্ত প্রাণীদের একেবারে শেষ করে দিল। যিহোশূয় কাউকেই বাঁচিয়ে রাখলেন না; তিনি লিব্‌না ও তার রাজা এবং হিব্রোণের অবস্থা যা করেছিলেন দবীর ও তার রাজার অবস্থাও তা-ই করলেন। 40এইভাবে যিহোশূয় সমস্ত এলাকাটা জয় করে নিলেন। তার মধ্যে ছিল উঁচু পাহাড়ী এলাকা, নেগেভ, নীচু পাহাড়ী এলাকা ও পাহাড়ের গায়ের ঢালু জায়গা। তিনি সেই এলাকার রাজাদেরও হারিয়ে দিলেন এবং সেখানকার কাউকেই বাঁচিয়ে রাখলেন না। ইস্রায়েলীয়দের ঈশ্বর সদাপ্রভু যেমন আদেশ করেছিলেন সেইভাবে তিনি সমস্ত জীবন্ত প্রাণীদের একেবারে শেষ করে দিয়েছিলেন। 41যিহোশূয় কাদেশ-বর্ণেয় থেকে গাজা পর্যন্ত এবং গোটা গোশন এলাকা, এমন কি, গিবিয়োন পর্যন্ত সমস্ত লোকদের হারিয়ে দিয়েছিলেন। 42এইভাবে একবার যুদ্ধ করতে বেরিয়ে যিহোশূয় এই সব রাজাদের ও তাঁদের দেশগুলো জয় করে নিয়েছিলেন, কারণ ইস্রায়েলীয়দের ঈশ্বর সদাপ্রভু তাদের হয়ে যুদ্ধ করেছিলেন। 43এর পর যিহোশূয় সমস্ত ইস্রায়েলীয়দের নিয়ে গিল্‌গলের ছাউনিতে ফিরে গেলেন।

will be added

X\