ইউহোন্না 6

1এর পরে যীশু গালীল সাগরের অন্য পারে চলে গেলেন। এই সাগরকে তিবিরিয়া সাগরও বলা হয়। 2অনেক লোক যীশুর পিছনে পিছনে যেতে লাগল, কারণ রোগীদের উপর তিনি চিহ্ন হিসাবে যে সব আশ্চর্য কাজ করছিলেন তারা তা দেখেছিল। 3যীশু তাঁর শিষ্যদের নিয়ে একটা পাহাড়ের উপরে উঠে বসলেন। 4সেই সময় যিহূদীদের উদ্ধার-পর্ব কাছে এসেছিল। 5যীশু চেয়ে দেখলেন অনেক লোক তাঁর কাছে আসছে। তিনি ফিলিপকে বললেন, “এই লোকদের খাওয়াবার জন্য আমরা কোথা থেকে রুটি কিনব?” 6ফিলিপকে পরীক্ষা করবার জন্য তিনি ঐ কথা বললেন, কারণ কি করবেন তা তিনি জানতেন। 7ফিলিপ যীশুকে বললেন, “ওরা যদি প্রত্যেকে অল্প করেও পায় তবু দু’শো দীনারের রুটিতেও কুলাবে না।” 8যীশুর শিষ্যদের মধ্যে একজনের নাম ছিল আন্দ্রিয়। ইনি ছিলেন শিমোন-পিতরের ভাই। 9আন্দ্রিয় যীশুকে বললেন, “এখানে একটা ছোট ছেলের কাছে পাঁচটা যবের রুটি আর দু’টা মাছ আছে, কিন্তু এত লোকের মধ্যে ওতে কি হবে?” 10যীশু বললেন, “লোকদের বসিয়ে দাও।” সেই জায়গায় অনেক ঘাস ছিল। লোকেরা তারই উপর বসে গেল। সেখানে পুরুষের সংখ্যাই ছিল কমবেশি পাঁচ হাজার। 11এর পরে যীশু সেই রুটি কয়খানা নিয়ে ঈশ্বরকে ধন্যবাদ দিলেন এবং যারা বসে ছিল তাদের ভাগ করে দিলেন। সেইভাবে তিনি মাছও দিলেন। যে যত চাইল তত পেল। 12লোকেরা পেট ভরে খেলে পর যীশু তাঁর শিষ্যদের বললেন, “যে টুকরাগুলো বাকী আছে সেগুলো একসংগে জড়ো কর যেন কিছুই নষ্ট না হয়।” 13লোকেরা খাবার পরে সেই পাঁচখানা রুটির যা বাকী ছিল শিষ্যেরা তা জড়ো করে বারোটা টুকরি ভর্তি করলেন। 14যীশুর এই আশ্চর্য কাজ দেখে লোকেরা বলতে লাগল, “জগতে যে নবীর আসবার কথা আছে ইনি সত্যিই সেই নবী।” 15এতে যীশু বুঝলেন, লোকেরা তাঁকে জোর করে তাদের রাজা করবার জন্য ধরতে আসছে। সেইজন্য তিনি একাই আবার সেই পাহাড়ে চলে গেলেন। 16সন্ধ্যা হলে পর যীশুর শিষ্যেরা সাগরের ধারে গেলেন, 17আর নৌকায় উঠে কফরনাহূম শহরে যাবার জন্য সাগর পার হতে লাগলেন। সেই সময় অন্ধকার হয়েছিল, আর তখনও যীশু তাঁদের কাছে আসেন নি। 18খুব জোরে বাতাস বইছিল বলে সাগরেও বড় বড় ঢেউ উঠছিল। 19পাঁচ-ছয় কিলোমিটার নৌকা বেয়ে যাবার পর তাঁরা দেখলেন, যীশু সাগরের উপর দিয়ে হেঁটে তাঁদের নৌকার কাছে আসছেন। এ দেখে শিষ্যেরা খুব ভয় পেলেন। 20তখন যীশু তাঁদের বললেন, “ভয় কোরো না; এ আমি।” 21শিষ্যেরা তাঁকে নৌকায় তুলে নিতে চাইলেন, আর তাঁরা যেখানে যাচ্ছিলেন নৌকাটা তখনই সেখানে পৌঁছে গেল। 22সাগরের অন্য পারে যে লোকেরা দাঁড়িয়ে ছিল, পরদিন তারা বুঝতে পারল যে, আগের দিন সেখানে একটা নৌকা ছাড়া আর অন্য কোন নৌকা ছিল না। তারা আরও বুঝতে পারল যে, যীশু তাঁর শিষ্যদের সংগে সেই নৌকায় ওঠেন নি বরং শিষ্যেরা একাই চলে গিয়েছিলেন। 23তবে যেখানে প্রভু ধন্যবাদ দেবার পর লোকেরা রুটি খেয়েছিল সেই জায়গার কাছে তখন তিবিরিয়া শহর থেকে কয়েকটা নৌকা আসল। 24এইজন্য লোকেরা যখন দেখল যে, যীশু বা তাঁর শিষ্যেরা কেউই সেখানে নেই তখন তারা সেই নৌকাগুলোতে উঠে যীশুকে খুঁজবার জন্য কফরনাহূমে গেল। 25সেখানে পৌঁছে তারা যীশুকে খুঁজে পেয়ে বলল, “গুরু, আপনি কখন এখানে এসেছেন?” 26যীশু উত্তর দিলেন, “আমি আপনাদের সত্যিই বলছি, আপনারা আশ্চর্য কাজ দেখেছেন বলেই যে আমার খোঁজ করছেন তা নয়, বরং পেট ভরে রুটি খেতে পেয়েছেন বলেই খোঁজ করছেন। 27কিন্তু যে খাবার নষ্ট হয়ে যায় সেই খাবারের জন্য ব্যস্ত হয়ে লাভ কি? যে খাবার নষ্ট হয় না বরং অনন্ত জীবন দান করে তারই জন্য ব্যস্ত হন। সেই খাবারই মনুষ্যপুত্র আপনাদের দেবেন, কারণ পিতা ঈশ্বর প্রমাণ করে দেখিয়েছেন যে, এই কাজ করবার অধিকার কেবল তাঁরই আছে। 28এতে লোকেরা যীশুকে জিজ্ঞাসা করল, “তাহলে ঈশ্বরের কাজ করবার জন্য আমাদের কি করতে হবে?” 29যীশু তাদের বললেন, “ঈশ্বর যাঁকে পাঠিয়েছেন তাঁর উপরে বিশ্বাস করাই হল ঈশ্বরের কাজ।” 30তখন তারা তাঁকে জিজ্ঞাসা করল, “তাহলে কি এমন আশ্চর্য কাজ আপনি করবেন যা দেখে আমরা আপনাকে বিশ্বাস করতে পারি? আপনি কি কাজ করবেন? 31আমাদের পূর্বপুরুষেরা তো মরু-এলাকায় মান্না খেয়েছিলেন। পবিত্র শাস্ত্রে লেখা আছে, ‘ঈশ্বর স্বর্গ থেকে তাদের রুটি খেতে দিলেন।’ ” 32যীশু তাদের বললেন, “আমি আপনাদের সত্যিই বলছি, স্বর্গ থেকে যে রুটি আপনারা পেয়েছিলেন তা মোশি আপনাদের দেন নি, কিন্তু আমার পিতা সত্যিকারের রুটি স্বর্গ থেকে আপনাদের দিচ্ছেন। 33স্বর্গ থেকে নেমে এসে যিনি মানুষকে জীবন দেন তিনিই ঈশ্বরের দেওয়া রুটি।” 34লোকেরা তাঁকে বলল, “গুরু, তাহলে সেই রুটিই সব সময় আমাদের দিন।” 35যীশু তাদের বললেন, “আমিই সেই জীবন-রুটি। যে আমার কাছে আসে তার কখনও খিদে পাবে না। যে আমার উপর বিশ্বাস করে তার আর কখনও পিপাসাও পাবে না। 36আমি তো আপনাদের বলেছি যে, আপনারা আমাকে দেখেছেন কিন্তু তবুও বিশ্বাস করেন না। 37পিতা আমাকে যাদের দেন তারা সবাই আমার কাছে আসবে। যে আমার কাছে আসে আমি তাকে কোনমতেই বাইরে ফেলে দেব না, 38কারণ আমি আমার ইচ্ছামত কাজ করতে আসি নি, বরং যিনি আমাকে পাঠিয়েছেন তাঁরই ইচ্ছামত কাজ করতে স্বর্গ থেকে নেমে এসেছি। 39যিনি আমাকে পাঠিয়েছেন তাঁর ইচ্ছা এই যে, যাদের তিনি আমাকে দিয়েছেন তাদের একজনকেও যেন আমি না হারাই বরং শেষ দিনে জীবিত করে তুলি। 40আমার পিতার ইচ্ছা এই-আপনাদের মধ্যে যাঁরা পুত্রকে দেখে তাঁর উপর বিশ্বাস করেন তাঁরা যেন অনন্ত জীবন পান। আর আমিই তাঁদের শেষ দিনে জীবিত করে তুলব।” 41তখন যিহূদী নেতারা যীশুর বিরুদ্ধে বকবক করতে লাগলেন, কারণ যীশু বলেছিলেন, “স্বর্গ থেকে যে রুটি নেমে এসেছে আমিই সেই রুটি।” 42সেই নেতারা বলতে লাগলেন, “এ কি যোষেফের ছেলে যীশু নয়? এর মা-বাবাকে তো আমরা চিনি। তবে এ কেমন করে বলে, ‘আমি স্বর্গ থেকে নেমে এসেছি’?” 43যীশু তাঁদের বললেন, “আপনারা নিজেদের মধ্যে বকবক করবেন না। 44আমার পিতা, যিনি আমাকে পাঠিয়েছেন তিনি টেনে না আনলে কেউই আমার কাছে আসতে পারে না। আর আমিই তাকে শেষ দিনে জীবিত করে তুলব। 45নবীদের বইয়ে লেখা আছে, ‘তারা সবাই ঈশ্বরের কাছে শিক্ষা পাবে।’ যে কেউ পিতার কাছ থেকে শুনে শিক্ষা পেয়েছে সে-ই আমার কাছে আসে। 46পিতাকে কেউ দেখে নি, কেবল যিনি ঈশ্বরের কাছ থেকে এসেছেন তিনিই তাঁকে দেখেছেন। 47আমি আপনাদের সত্যিই বলছি, যে কেউ আমার উপর বিশ্বাস করে সে তখনই অনন্ত জীবন পায়।” 48“আমিই জীবন-রুটি। 49আপনাদের পূর্বপুরুষেরা মরু-এলাকায় মান্না খেয়েছিলেন, আর তবুও তাঁরা মারা গেছেন। 50কিন্তু এ সেই রুটি যা স্বর্গ থেকে নেমে এসেছে, যাতে মানুষ তা খেয়ে মৃত্যুর হাত থেকে রেহাই পায়। 51আমিই সেই জীবন্ত রুটি যা স্বর্গ থেকে নেমে এসেছে। এই রুটি যে খাবে সে চিরকালের জন্য জীবন পাবে। আমার দেহই সেই রুটি। মানুষ যেন জীবন পায় সেইজন্য আমি আমার এই দেহ দেব।” 52এই কথা শুনে যিহূদী নেতাদের মধ্যে তর্কাতর্কি শুরু হল। তাঁরা বলতে লাগলেন, “কেমন করে এই লোকটা তার দেহ আমাদের খেতে দিতে পারে?” 53যীশু তাঁদের বললেন, “আমি সত্যিই আপনাদের বলছি, মনুষ্যপুত্রের মাংস ও রক্ত যদি আপনারা না খান তবে আপনাদের মধ্যে জীবন নেই। 54যদি কেউ আমার মাংস ও রক্ত খায় সে অনন্ত জীবন পায়, আর আমি শেষ দিনে তাকে জীবিত করে তুলব। 55আমার মাংসই হল আসল খাবার আর আমার রক্তই আসল পানীয়। 56যে আমার মাংস ও রক্ত খায় সে আমারই মধ্যে থাকে আর আমিও তার মধ্যে থাকি। 57জীবন্ত পিতা আমাকে পাঠিয়েছেন আর তাঁরই দরুন আমি জীবিত আছি। ঠিক সেইভাবে যে আমাকে খায় সেও আমার দরুন জীবিত থাকবে। 58এ সেই রুটি যা স্বর্গ থেকে নেমে এসেছে। আপনাদের পূর্বপুরুষেরা যে রুটি খেয়েও মারা গেছেন এ সেই রকম রুটি নয়। এই রুটি যে খাবে সে চিরকালের জন্য জীবন পাবে।” 59কফরনাহূমের সমাজ-ঘরে শিক্ষা দেবার সময় যীশু এই কথা বলেছিলেন। 60তাঁর শিষ্যদের মধ্যে অনেকে এই কথা শুনে বলল, “এ বড় কঠিন শিক্ষা। কে এটা গ্রহণ করতে পারে?” 61যীশু নিজের মনে বুঝতে পারলেন যে, তাঁর শিষ্যেরা এই বিষয় নিয়ে বকবক করছে। সেইজন্য তিনি তাঁদের বললেন, “এতে কি তোমরা মনে বাধা পাচ্ছ? 62তবে মনুষ্যপুত্র আগে যেখানে ছিলেন তাঁকে সেখানে উঠে যেতে দেখলে তোমরা কি বলবে? 63মানুষের দেহ কোন কাজের নয়; পবিত্র আত্মাই জীবন দেন। আমি তোমাদের যে কথাগুলো বলেছি তা আত্মিক জীবন দান করে, 64কিন্তু তোমাদের মধ্যে এমন কেউ কেউ আছে যারা আমাকে বিশ্বাস করে না।” কে কে যীশুকে বিশ্বাস করে না আর কে-ই বা তাঁকে শত্রুদের হাতে ধরিয়ে দেবে, যীশু প্রথম থেকেই তা জানতেন। 65সেইজন্য তিনি বললেন, “তাই আমি তোমাদের বলেছি যে, পিতা শক্তি না দিলে কেউই আমার কাছে আসতে পারে না।” 66যীশুর এই কথার জন্য শিষ্যদের মধ্যে অনেকে ফিরে গেল এবং তাঁর সংগে চলাফেরা বন্ধ করে দিল। 67এইজন্য যীশু সেই বারোজন শিষ্যকে বললেন, “তোমরাও কি চলে যেতে চাও?” 68শিমোন-পিতর যীশুকে বললেন, “প্রভু, আমরা কার কাছে যাব? অনন্ত জীবনের বাণী তো আপনারই কাছে আছে। 69আমরা বিশ্বাস করেছি আর জানতেও পেরেছি যে, আপনিই ঈশ্বরের সেই পবিত্রজন।” 70তখন যীশু তাঁদের বললেন, “আমি তোমাদের বারোজনকে কি বেছে নিই নি? অথচ তোমাদেরই মধ্যে একজন শত্রু আছে।” 71এখানে যীশু শিমোন ইষ্কারিয়োতের ছেলে যিহূদার কথা বলছিলেন, কারণ সে-ই পরে যীশুকে ধরিয়ে দেবে। সে ছিল সেই বারোজনের মধ্যে একজন।

will be added

X\