Genesis 28

1রিবিকার কথা শুনে ইস্‌হাক যাকোবকে ডেকে আশীর্বাদ করলেন এবং তাঁকে এই আদেশ দিলেন, “তুমি কনান দেশের কোন মেয়েকে বিয়ে কোরো না। 2তুমি পদ্দন-অরাম দেশে তোমার মায়ের বাবা বথূয়েলের বাড়ীতে যাও। সেখানে থাকবার সময় তোমার মামা লাবনের কোন মেয়েকে তুমি বিয়ে কোরো। 3সর্বশক্তিমান ঈশ্বর তোমাকে আশীর্বাদ করুন আর তোমাকে অনেক সন্তানের পিতা হবার ক্ষমতা দিন। তিনি তোমার বংশের লোকদের সংখ্যা বাড়িয়ে তুলুন। তাতে তারা হবে একটা বহু গোষ্ঠীর জাতি। 4যে আশীর্বাদ তিনি অব্রাহামকে করেছিলেন সেই আশীর্বাদই তিনি তোমাকে এবং তোমার পরে তোমার বংশের লোকদের করুন। যে দেশ ঈশ্বর অব্রাহামকে দিয়েছিলেন, যেখানে তুমি এখন বিদেশী হিসাবে আছ, সেই দেশটা যেন তোমার অধিকারে আসে।” 5এই বলে ইস্‌হাক যাকোবকে পাঠিয়ে দিলেন, আর যাকোবও পদ্দন-অরামে অরামীয় বথূয়েলের ছেলে লাবনের কাছে গেলেন। লাবন ছিলেন যাকোব ও এষৌর মা রিবিকার ভাই। 6পরে এষৌ শুনলেন যে, ইস্‌হাক যাকোবকে আশীর্বাদ করে পদ্দন-অরামের কোন মেয়েকে বিয়ে করবার জন্য সেখানে পাঠিয়ে দিয়েছেন। তিনি আরও শুনলেন, ইস্‌হাক যাকোবকে আশীর্বাদ করবার সময় আদেশ দিয়ে বলেছিলেন যেন সে কোন কনানীয় মেয়েকে বিয়ে না করে। 7এষৌ দেখলেন, যাকোব তাঁর মা-বাবার কথামত পদ্দন-অরামে চলে গেছেন। 8এতে এষৌ বুঝলেন যে, তাঁর বাবা ইস্‌হাক কনানীয় স্ত্রীলোকদের উপর খুশী নন। 9তাই দু’টি স্ত্রী থাকলেও তিনি অব্রাহামের ছেলে ইশ্মায়েলের বাড়ীতে গিয়ে তাঁর মেয়ে মহলত্‌কে বিয়ে করলেন। মহলৎ ছিল নবায়োতের বোন। 10এদিকে যাকোব বের্‌-শেবা ছেড়ে হারণ শহরের দিকে যাত্রা করলেন। 11পথে এক জায়গায় বেলা ডুবে গেলে পর তিনি সেখানেই রাতটা কাটালেন। সেখানে কতগুলো পাথর পড়ে ছিল। যাকোব সেগুলোর একটা মাথার নীচে দিয়ে শুয়ে পড়লেন। 12তিনি স্বপ্নে দেখলেন মাটির উপরে একটা সিঁড়ি দাঁড়িয়ে আছে এবং তার মাথাটা গিয়ে স্বর্গে ঠেকেছে। তিনি দেখলেন ঈশ্বরের দূতেরা তার উপর দিয়ে ওঠা-নামা করছেন, 13আর সদাপ্রভু তার উপরে দাঁড়িয়ে বলছেন, “আমি সদাপ্রভু। আমি তোমার পূর্বপুরুষ অব্রাহামের ঈশ্বর এবং ইস্‌হাকেরও ঈশ্বর। তুমি যেখানে শুয়ে আছ সেই দেশ আমি তোমাকে এবং তোমার বংশের লোকদের দেব। 14তোমার বংশের লোকেরা পৃথিবীর ধূলিকণার মত অসংখ্য হবে। পূর্ব-পশ্চিমে এবং উত্তর-দক্ষিণে তোমার বংশ ছড়িয়ে পড়বে। পৃথিবীর সমস্ত জাতি তোমার ও তোমার বংশের মধ্য দিয়ে আশীর্বাদ পাবে। 15আমি তোমার সংগে সংগে আছি; তুমি যেখানেই যাও না কেন আমি তোমাকে রক্ষা করব। এই দেশেই আবার আমি তোমাকে ফিরিয়ে আনব। আমি তোমাকে যা বলেছি তা পূর্ণ না করা পর্যন্ত আমি তোমাকে ছেড়ে যাব না।” 16পরে যাকোব ঘুম থেকে উঠে বললেন, “তাহলে সদাপ্রভু নিশ্চয়ই এই জায়গায় আছেন অথচ আমি তা বুঝতে পারি নি।” 17এই কথা ভেবে তাঁর মনে ভয় হল। তিনি বললেন, “কি ভয়ংকর এই জায়গা! এটা ঈশ্বরের থাকবার জায়গা ছাড়া আর কিছু নয়; স্বর্গের দরজা এখানেই।” 18যাকোব ভোরে উঠলেন এবং যে পাথরটা তিনি মাথার নীচে দিয়েছিলেন সেটা থামের মত করে দাঁড় করিয়ে তার উপরে তেল ঢেলে দিলেন। 19তিনি জায়গাটার নাম দিলেন বৈথেল (যার মানে “ঈশ্বরের ঘর”)। এই জায়গাটার কাছের শহরটার আগের নাম ছিল লূস। 20এর পর যাকোব শপথ করে বললেন, “যদি ঈশ্বর আমার এই যাত্রাপথে আমাকে রক্ষা করেন, যদি তিনি আমাকে খোরাক-পোশাক যুগিয়ে দেন, 21যদি আমি আবার আমার বাবার বাড়ীতে ভালোয় ভালোয় ফিরে আসতে পারি, তবে এই সদাপ্রভুকেই আমি আমার ঈশ্বর বলে মানব। 22এই যে পাথর আমি এখানে থামের মত করে দাঁড় করিয়ে রাখলাম এখানেই হবে ঈশ্বরের ঘর। হে ঈশ্বর, তুমি আমাকে যা কিছু দেবে তার দশ ভাগের এক ভাগ নিশ্চয়ই আমি তোমাকে ফিরিয়ে দেব।”

will be added

X\