Ezekiel 24

1আমাদের বন্দীদশার নবম বছরের দশম মাসের দশম দিনে সদাপ্রভুর এই বাক্য আমার কাছে প্রকাশিত হল, 2“হে মানুষের সন্তান, তুমি আজকের, আজকের তারিখের কথাই লিখে রাখ, কারণ আজকে বাবিলের রাজা যিরূশালেম ঘেরাও করছে। 3এই বিদ্রোহী জাতির কাছে এই দৃষ্টান্তের কথা বল। তাদের বল যে, প্রভু সদাপ্রভু বলছেন, ‘হাঁড়ি চড়াও, হাঁড়ি চড়াও এবং তার মধ্যে জল দাও। 4তার মধ্যে মাংসের টুকরা দাও, ঊরু ও কাঁধের ভাল ভাল মাংসের টুকরা দাও। ভাল ভাল হাড় দিয়ে তা ভরতি কর। 5পাল থেকে সেরা ভেড়াটা নাও; হাঁড়ির নীচে কাঠ সাজাও; তা ভালভাবে ফুটিয়ে নিয়ে হাড়গুলো রান্না কর।’ 6“প্রভু সদাপ্রভু আরও বলছেন, ‘ধিক্‌, সেই রক্তপাতকারী শহরকে! সে যেন একটা হাঁড়ি যাতে ময়লার স্তর পড়ে গেছে, যা পরিষ্কার করা যায় না। মাংসগুলো বেছে বেছে না নিয়ে টুকরার পর টুকরা বের কর। 7সেই শহরের মধ্যে রক্তপাত করা হয়েছে। সেই রক্ত পাথরের উপর ঢালা হয়েছে; তা মাটিতে ঢালা হয় নি যেখানে ধুলায় তা ঢাকা পড়ত। 8ক্রোধ খুঁচিয়ে তুলে যাতে প্রতিশোধ নেওয়া হয় সেইজন্য আমি সেই রক্ত পাথরের উপরে রেখেছি যেন সেটা ঢাকা না পড়ে।’ 9“প্রভু সদাপ্রভু আবার বলছেন, ‘ধিক্‌, সেই রক্তপাতকারী শহরকে! আমিও কাঠ জড়ো করে উঁচু করব। 10তাই অনেক কাঠ সাজাও, আগুন জ্বালাও, মশলা মিশিয়ে মাংস ভাল করে রান্না কর, হাড়গুলো পুড়ে যেতে দাও। 11তারপর খালি হাঁড়িটা কয়লার উপরে রাখ যেন তা গরম হয়, তার তামা পুড়ে লাল হয়, তার অশুচিতা সব গলে যায় এবং তার ময়লার স্তর পুড়ে যায়। 12কিন্তু সমস্ত চেষ্টাই মিথ্যা হয়ে গেছে; তার ময়লার পুরু স্তর পরিষ্কার করা যায় নি, সেইজন্য তা আগুনে ফেলে দাও। 13“‘হে যিরূশালেম, তোমার কুকাজই হল তোমার সেই অশুচিতা। আমি তোমাকে পরিষ্কার করতে চেষ্টা করলাম কিন্তু তোমার অশুচিতা থেকে তুমি পরিষ্কার হলে না। তোমার বিরুদ্ধে আমার ক্রোধ সম্পূর্ণভাবে ঢেলে না দেওয়া পর্যন্ত তুমি আর পরিষ্কার হবে না। 14আমার কাজ করবার সময় এসে গেছে। আমি তা করবই করব, মমতা করব না কিম্বা নরমও হব না। তোমার আচার-ব্যবহার ও তোমার কাজ অনুসারে তোমার বিচার করা হবে। আমি প্রভু সদাপ্রভু এই কথা বলছি।’” 15পরে সদাপ্রভু আমাকে বললেন, 16“হে মানুষের সন্তান, আমি এক আঘাতেই তোমার কাছ থেকে তোমার চোখের মণিকে নিয়ে নিতে যাচ্ছি। তবুও তুমি বিলাপ কোরো না, কেঁদো না কিম্বা চোখের জল ফেলো না। 17তুমি নীরবে দীর্ঘনিঃশ্বাস ছাড়বে। তুমি মৃতের জন্য শোক প্রকাশ কোরো না। তুমি পাগড়ী বেঁধো ও পায়ে চটি দিয়ো; তোমার মুখের নীচের অংশ ঢেকো না কিম্বা লোকদের পাঠানো খাবার খেয়ো না।” 18আমি সকালবেলা লোকদের সংগে কথা বললাম আর সন্ধ্যাবেলা আমার স্ত্রী মারা গেলেন। পরদিন সকালে আমি সদাপ্রভুর আদেশ মত কাজ করলাম। 19তখন লোকেরা আমাকে জিজ্ঞাসা করল, “আপনি যা করছেন আমাদের জন্য তার অর্থ কি? তা কি আমাদের বলবেন না?” 20কাজেই আমি তাদের বললাম যে, প্রভু সদাপ্রভু আমাকে ইস্রায়েলীয়দের এই কথা বলতে বলছেন, “আমার ঘর, যা তোমাদের শক্তির অহংকার, যা তোমাদের চোখের সুখ ও তোমাদের মমতার জিনিস, সেটাকেই আমি অপবিত্র করাব। তোমাদের যে সব ছেলেমেয়েদের তোমরা ফেলে গেছ তারা যুদ্ধে মারা পড়বে। 22তখন যিহিষ্কেল যা করেছে তোমরাও তা-ই করবে। মুখের নীচের অংশটা তোমরা ঢাকবে না কিম্বা লোকদের পাঠানো খাবার খাবে না। 23তোমাদের মাথায় তোমরা পাগড়ী বাঁধবে এবং পায়ে চটি দেবে। তোমরা বিলাপ করবে না বা কাঁদবে না, কিন্তু নিজের নিজের পাপের জন্য দুর্বল হয়ে যাবে এবং একে অন্যের কাছে কোঁকাবে। 24যিহিষ্কেল তোমাদের কাছে একটা চিহ্নের মত হবে; সে যা করেছে তোমরা ঠিক তা-ই করবে। যখন এটা ঘটবে তখন তোমরা জানবে যে, আমিই প্রভু সদাপ্রভু।” 25সদাপ্রভু আমাকে আরও বললেন, “হে মানুষের সন্তান, যেদিন আমি তাদের সেই শক্তির অহংকার, তাদের আনন্দ ও গৌরব, তাদের চোখের সুখ, তাদের অন্তরের চাওয়া এবং তাদের ছেলেমেয়েদেরও নিয়ে নেব, 26সেই দিন একজন পালিয়ে আসা লোক তোমাকে খবর দিতে আসবে। 27সেই সময় তোমার মুখ খুলে যাবে; তুমি তার সংগে কথা বলবে, তোমার জিভ্‌ আর আট্‌কানো থাকবে না। এইভাবে তুমি তাদের কাছে একটা চিহ্ন হবে আর তারা জানবে যে, আমিই সদাপ্রভু।”


Copyrighted Material
Learn More

will be added

X\