Deuteronomy 33

1ঈশ্বরের লোক মোশি মৃত্যুর আগে ইস্রায়েলীয়দের এই বলে আশীর্বাদ করেছিলেন, 2“সদাপ্রভু সিনাই থেকে আসলেন, তিনি সেয়ীর থেকে তাদের উপর আলো দিলেন; তাঁর আলো পারণ পাহাড় থেকে ছড়িয়ে পড়ল। তিনি লক্ষ লক্ষ পবিত্র স্বর্গদূতদের মাঝখান থেকে আসলেন; তাঁর ডান হাতে রয়েছে তাদের জন্য আগুন ভরা আইন। 3“সত্যিই তিনি তাঁর নিজের লোকদের ভালবাসেন। পবিত্র দূতেরা তাঁর অধীনে রয়েছেন, তাঁরা সবাই তাঁর পায়ে নত হয়ে আছেন; তাঁরই কাছে তাঁরা আদেশ পান। 4আমাদের কাছে মোশি যে আইন-কানুন দিয়েছিলেন, সেটাই হল যাকোব-গোষ্ঠীর ধন। 5যখন ইস্রায়েলীয় সর্দারেরা জড়ো হলেন, তাদের সংগে ইস্রায়েলীয় সব গোষ্ঠী জড়ো হল, তখন সদাপ্রভুই ছিলেন যিশুরূণের রাজা।” 6রূবেণ সম্বন্ধে মোশি বলেছিলেন, “রূবেণকে বাঁচিয়ে রাখ, মৃত্যু তার দূরে রাখ; তার লোকসংখ্যা যেন কম থাকে।” 7যিহূদা সমন্ধে তিনি বলেছিলেন, “হে সদাপ্রভু, তুমি যিহূদার কথা শোন; তার লোকদের মধ্যে তাকে ফিরিয়ে আন। তার নিজের দু’হাত সে যুদ্ধে লাগায়; শত্রুর বিরুদ্ধে তুমি তার সহায় হও।” 8লেবি সম্বন্ধে তিনি বলেছিলেন, “তোমার ভক্তের কাছে তোমার তূম্মীম ও ঊরীম আছে; মঃসাতে তুমি তার পরীক্ষা করেছিলে, মরীবার জলের কাছে তার সংগে ঝগড়া করেছিলে। 9নিজের বাপ-মাকে বড় করে না দেখে, নিজের ভাইদের স্বীকার না করে, নিজের ছেলেমেয়েদের অস্বীকার করে, সে তোমার বাক্য পাহারা দিয়েছে আর তোমার ব্যবস্থা রক্ষা করেছে। 10তোমার আদেশ সে যাকোবকে শিখায়, আর আইন-কানুন শিখায় ইস্রায়েলকে। সে তোমার সামনে ধূপ জ্বালায়, তোমার বেদীর উপরে পোড়ানো-উৎসর্গ করে। 11হে সদাপ্রভু, তুমি তার সম্পত্তিতে আশীর্বাদ কর, তার সব কাজে তুমি খুশী হও। তুমি তার শত্রুর কোমর ভেংগে দাও; যারা তাকে ঘৃণা করে তাদের কোমর ভেংগে দাও, যেন তারা আর দাঁড়াতে না পারে।” 12বিন্যামীন সম্বন্ধে তিনি বলেছিলেন, “সদাপ্রভু যাকে ভালবাসেন সে নিরাপদে তাঁর কাছে থাকবে; তিনি সব সময় তাকে আড়ালে রাখেন; তাঁরই পিঠের উপর তার স্থান।” 13যোষেফ সম্বন্ধে তিনি বলেছিলেন, “সদাপ্রভু তার দেশকে যেন আশীর্বাদ করেন আকাশের মহামূল্য শিশির দিয়ে, মাটির নীচের জল দিয়ে, 14সূর্যের সেরা দান দিয়ে, মৌসুমের সেরা ফসল দিয়ে, 15পুরানো পাহাড়ের সম্পদ দিয়ে, চিরকালের পাহাড়ের ধন দিয়ে, 16ভরা দুনিয়ার ভাল ভাল জিনিস দিয়ে, আর জ্বলন্ত ঝোপে যিনি ছিলেন তাঁর দয়া দিয়ে। যোষেফের মাথায় এই সব আশীর্বাদ ঝরে পড়ুক; ভাইদের মধ্যে যে মহৎ তাঁরই মাথায় ঝরে পড়ুক এই সব আশীর্বাদ। 17তার মহিমা প্রথমে জন্মানো ষাঁড়ের মত, তার মাথায় রয়েছে বুনো ষাঁড়ের শিং। তা দিয়ে সে গুঁতাবে দুনিয়ার সব জাতিকে, এমন কি, এর শেষ সীমানার জাতিকেও। এই রকমই হবে ইফ্রয়িমের লক্ষ লক্ষ আর মনঃশির হাজার হাজার লোক।” 18সবূলূন সম্বন্ধে তিনি বলেছিলেন, “সবূলূন বাইরের কাজে খুশী হোক, আর ইষাখর খুশী হোক ঘরের কাজে। 19লোকদের তারা পাহাড়ের ধারে ডাকবে; সেখানে যোগ্য মনোভাব নিয়ে তারা পশু-উৎসর্গ করবে। সাগর থেকে তারা তুলবে সাগরের ধন, আর বালি থেকে তুলে আনবে বালির তলার ধন।” 20গাদ সম্বন্ধে তিনি বলেছিলেন, “ধন্য তিনি, যিনি গাদের রাজ্যের সীমা বাড়াবেন। সে সিংহের মত বসবে আর শত্রুর মাথা ও হাত ছিঁড়বে। 21সব জায়গার সেরা জায়গা সে বেছে নিয়েছে; নেতার যোগ্য পাওনা তার জন্য রাখা আছে। যুদ্ধে জড়ো হওয়া সর্দারদের মধ্যে সে-ই সদাপ্রভুর ন্যায়-ভরা হুকুম পালন করেছে, পালন করেছে ইস্রায়েলকে দেওয়া সদাপ্রভুর নিয়ম।” 22দান সম্বন্ধে তিনি বলেছিলেন, “সে যেন বাশন থেকে লাফিয়ে আসা সিংহের বাচ্চা।” 23নপ্তালি সম্বন্ধে তিনি বলেছিলেন, “নপ্তালি সদাপ্রভুর করুণায় পূর্ণ; তাঁরই আশীর্বাদে সে পূর্ণ হয়ে উঠেছে। তুমি তোমার সীমানার মধ্যে নিয়ে এস গালীল সাগর ও তার দক্ষিণের দেশ।” 24আশের সম্বন্ধে তিনি বলেছিলেন, “আশের অন্যের চেয়ে বেশী আশীর্বাদ পাবে; সে যেন ভাইদের প্রিয় হয়, তার পা দু’খানা যেন জলপাই তেলের মধ্যে ডুবে থাকে। 25লোহা আর ব্রোঞ্জের আগল দিয়ে তার সদর দরজা বাঁধা থাকবে। যতদিন সে বেঁচে থাকবে ততদিন তার দেহে শক্তি থাকবে।” 26তিনি বলেছিলেন, “যিশুরূণের ঈশ্বরের মত আর কেউ নেই। তোমার সাহায্যকারী হবার জন্য মেঘের উপর চড়ে নিজের মহিমায় তিনি আকাশ-পথে চলেন। 27যিনি আদিকালের ঈশ্বর তিনিই তোমার আশ্রয়; তাঁর চিরকালের হাতে তিনিই তোমাকে ধরে আছেন। তোমার সামনে যত শত্রু আছে তিনি তাদের তাড়িয়ে দেবেন; তিনি বলবেন, ‘এদের ধ্বংস কর।’ 28ইস্রায়েল তাই নিরাপদে থাকবে। যাকোবের ঝরণা থাকবে বিপদ-সীমার বাইরে; সেখানে থাকবে প্রচুর শস্য ও নতুন আংগুর-রস, তার উপরে আকাশের শিশির ঝরে পড়বে। 29হে ইস্রায়েল, তুমি ধন্য! তুমিই সদাপ্রভুর উদ্ধার-করা জাতি, তোমার মত আর কোন জাতি নেই। তিনিই তোমার সাহায্যের ঢাল, তোমার গৌরবের তলোয়ার। শত্রুরা তোমার সামনে থর থর করে কাঁপবে, আর তুমি তাদের পিঠ মাড়িয়ে চলে যাবে।”

will be added

X\