১ থিষলনীকীয় 2

1ভাইয়েরা, তোমরা নিজেরাই জান যে, তোমাদের কাছে আমাদের যাওয়া নিষ্ফল হয় নি। 2তোমরা এই কথাও জান যে, এর আগে ফিলিপী শহরে আমরা অত্যাচার ভোগ করেছিলাম এবং অসম্মানিতও হয়েছিলাম। কিন্তু এই সব বাধা-বিপত্তি থাকলেও আমাদের ঈশ্বরের কাছ থেকে সাহস পেয়ে তাঁর সুখবরের কথা আমরা খোলাখুলিভাবেই তোমাদের কাছে বলেছিলাম। 3আমাদের উপদেশ ভুল শিক্ষা থেকে নয়, অসৎ উদ্দেশ্য থেকেও নয়, কিম্বা আমরা ছলনা করেও কোন কথা বলছি না; 4বরং যোগ্য মনে করে সুখবর জানাবার ভার ঈশ্বর আমাদের উপর দিয়েছেন বলেই আমরা সেই হিসাবে কথা বলছি। মানুষকে সন্তুষ্ট করবার জন্য আমরা এই কথা বলছি না, কিন্তু যিনি আমাদের অন্তর যাচাই করে দেখেন সেই ঈশ্বরকে সন্তুষ্ট করবার জন্যই বলছি। 5তোমরা জান আমরা কখনও তোষামোদ করে কথা বলি নি, আর লোভকে ঢেকে রেখেও যে ছলনা করে কোন কথা আমরা বলি নি, ঈশ্বরই তার সাক্ষী। 6মানুষের কাছ থেকে, অর্থাৎ তোমাদের বা অন্য কারও কাছ থেকে আমরা প্রশংসা পাবার চেষ্টা করি নি। খ্রীষ্টের প্রেরিত্‌ হিসাবে আমাদের অধিকার অবশ্য আমরা তোমাদের উপর খাটাতে পারতাম, 7কিন্তু তার বদলে মা যেমন তাঁর নিজের সন্তানদের আদর-যত্ন করেন, তোমাদের মধ্যে থাকবার সময়ে আমরাও তোমাদের সংগে সেই রকমই নরম ব্যবহার করেছিলাম। 8তোমাদের উপর গভীর মায়া-মমতা থাকাতে তোমাদের কেবল ঈশ্বরের সুখবর দিতে নয়, তোমাদের জন্য নিজেদের প্রাণ দিতেও আমরা রাজী ছিলাম, কারণ আমাদের কাছে তোমরা খুবই প্রিয়। 9ভাইয়েরা, আমাদের পরিশ্রম আর কষ্টের কথা নিশ্চয়ই তোমাদের মনে আছে। তোমাদের কাছে ঈশ্বরের সুখবর প্রচার করবার সময় আমরা দিনরাত পরিশ্রম করেছি, যাতে আমরা তোমাদের কারও উপরে বোঝা হয়ে না পড়ি। 10তোমরা যারা বিশ্বাস করেছ, তোমাদের সংগে আমাদের ব্যবহার যে পবিত্র, সৎ ও নিখুঁত ছিল, তার সাক্ষী তোমরাও আছ আর ঈশ্বরও আছেন। 11তোমরা জান, বাবা যেমন নিজের সন্তানদের উৎসাহ, সান্ত্বনা ও কঠোরভাবে আদেশ দেন, আমরাও তোমাদের প্রত্যেককে তা-ই দিতাম, যেন ঈশ্বরের লোক হিসাবে তোমরা উপযুক্ত ভাবে চল। ঈশ্বর তাঁর নিজের রাজ্যের ও তাঁর মহিমার ভাগী হবার জন্যই তোমাদের ডাকছেন। 13আমরা সব সময় ঈশ্বরকে ধন্যবাদ দিচ্ছি, কারণ ঈশ্বরের বাক্য আমাদের কাছ থেকে শুনে যখন তোমরা বিশ্বাস করেছিলে তখন তোমরা তা মানুষের বলে নয়, কিন্তু ঈশ্বরের বাক্য বলেই গ্রহণ করেছিলে। আর সত্যিই তা ঈশ্বরেরই বাক্য। তোমরা যারা বিশ্বাস করেছ, তোমাদের অন্তরে সেই বাক্যই কাজ করছে। 14ভাইয়েরা, যিহূদিয়া প্রদেশে খ্রীষ্ট যীশুর সংগে যুক্ত ঈশ্বরের যে মণ্ডলীগুলো আছে, তোমাদের অবস্থা তাদের মতই। যিহূদীদের হাতে তারা যে সব দুঃখ-কষ্ট ভোগ করেছে, তোমরাও নিজের দেশের লোকদের হাতে সেই একই রকম দুঃখ-কষ্ট ভোগ করেছ। 15ঐ যিহূদীরাই প্রভু যীশুকে ও নবীদের মেরে ফেলেছিল, আর আমাদের উপরও তারা অত্যাচার করেছে। তারা ঈশ্বরকে অসন্তুষ্ট করে, আর সমস্ত মানুষের উপর তাদের শত্রুভাব আছে। 16তারা আমাদের বাধা দেয় যেন অযিহূদীদের পাপ থেকে উদ্ধারের জন্য তাদের কাছে আমরা কোন কথা বলতে না পারি। এইভাবেই ঐ যিহূদীরা সব সময় পাপের উপর পাপ বোঝাই করছে, আর ঈশ্বরের ক্রোধ সম্পূর্ণভাবে তাদের উপর এসে পড়েছে। 17ভাইয়েরা, মনের দিক থেকে না হলেও দেহের দিক থেকে আমরা অল্প সময়ের জন্য তোমাদের কাছ-ছাড়া হয়েছি। তাই আমরা খুব আগ্রহের সংগে চেষ্টা করেছিলাম যাতে আবার তোমাদের সংগে আমাদের দেখা হয়। 18সেইজন্য আমরা, বিশেষ করে আমি পৌল অনেক বারই তোমাদের কাছে আসতে চেয়েছিলাম, কিন্তু শয়তান আমাদের বাধা দিয়েছিল। 19আমাদের প্রভু যীশু যখন আসবেন তখন তাঁর সামনে তোমরাই কি আমাদের আশা, আনন্দ ও গৌরবের জয়ের মালা হবে না? 20সত্যি, তোমরাই আমাদের গৌরব, তোমরাই আমাদের আনন্দ।

will be added

X\